হামার রংপুর

হামার রংপুরের অপরাধ কমানোর চেষ্টা

হামার অংপুরের কি দুর্দশা থেকে উত্তরণ হবে না? সামাজিক মুক্ত কবে হবে বাহে। এরকম আর কবে শুনতে হবে না। তারই লক্ষে গঠিত ২০৫.৭০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এলাকা নিয়ে ২০১২ সালের ২৮ জুন পৌরসভা থেকে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হয় রংপুর।৩৩টি ওয়ার্ডের মোট জনসংখ্যা প্রায় ৭,৯৬,৫৫৬ জন।যাদের নিরাপত্তায় কাজ করে যাচ্ছে শুধুমাত্র একটি থানা।রংপুর সিটি কর্পোরেশনের সাধারণ নাগরিকদের অনেক দিনের স্বপ্ন ছিলো মেট্রোপলিটন পুলিশের মাধ্যমে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে সরকার।অবশেষে সিটি নির্বাচনের দ্বিতীয় মেয়াদে এসে সেই স্বপ্ন পূরণ হলো তাদের।গত কয়েকদিন আগে জাতীয় সংসদে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ বিল পাস হয়েছে এবং ইতোমধ্যেই সি এম পির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনানকে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার করা হয়েছে।তিনি মহা-পুলিশ পরিদর্শক এর অধিনে থাকবেন।রংপুর সিটি কর্পোরেশনে মোট ৬টি থানার প্রস্তাব করা হয়।কোতয়ালী,হাজীরহাট,পরশুরাম,তাজহাট,মাহীগঞ্জ ও সাহেবগঞ্জ।মোট জনসংখ্যার বিপরীতে পুলিশের লোকবল ধরা হয়েছে ৫ হাজার ১০০ জন। তার মধ্যে ১ জন ডিআইজি,৯ জন এসপি,৫৩ জন সহকারি এসপি,২৩ জন এ এসপি, ১২ জন ওসি,৮০০ জন সাব ইন্সেপেক্টর, ১৫০০ জন অতিঃ সাব ইন্সেপেক্টর,২৭০০ জন পুলিশ কনেস্টেবল।রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ইউনিটে থাকবে ১০টি পুলিশ ফাড়ি ও ৮টি পুলিশ বস্ক।সংসদে মেট্রোপলিটন পুলিশ বিল পাস হওয়ায় আনন্দিত নগরবাসী।সচেতন নাগরিকরা বলছেন,জনসাধারণের নিরাপত্তা ও নাগরিক সুবিধা প্রদান করে মানুষের পাশে থাকবে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ পরিবার।ফলে কমে যাবে বিভিন্ন সামাজিক অপরাধ।
Share on Google Plus

About Md. Mokhlasur Rahman

0 comments:

Post a Comment