এখানে এড দিন

Header ADS

জেফ বেজোসই এখন বিশ্বের শীর্ষ ধনী

আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসের (৫৪) মোট সম্পদের পরিমাণ এখন ১৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি। ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার ইনডেক্স অনুযায়ী জেফ বেজোসই এখন বিশ্বের শীর্ষ ধনী। গত সোমবার তাঁর সম্পদের মূল্য ১৫০ বিলিয়নের মাইলফলক স্পর্শ করে।

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত এক বছরে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি সম্পদ বেড়েছে বেজোসের। এতেই তিনি মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসকে টপকে গেছেন।

১৯৯৯ সালে বিল গেটসের সর্বোচ্চ সম্পদের পরিমাণ ছিল ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ওই সময় তাঁর সম্পদের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি ছিল। তবে বেজোস বর্তমানে গেটসের চেয়ে অনেক বেশি সম্পদের মালিক। বর্তমানে গেটসের সম্পদের পরিমাণ ৯৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অবশ্য ১৯৯৬ সাল থেকে ৭০ কোটি মার্কিন ডলার মূল্যের শেয়ার ও ২৯০ কোটি মার্কিন ডলার নগদ অর্থ বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনকে দান করছেন তিনি।

বেজোস বলেন, প্রতিবছর তিনি এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের শেয়ার বিক্রি করেন। সেই অর্থ বাণিজ্যিক মহাকাশ ভ্রমণ প্রকল্প ‘ব্লু অরিজিন’-এর পেছনে খরচ হয়।

অবশ্য এর আগেও বিশ্বের শীর্ষ ধনীর তালিকায় উঠে এসেছিলেন বেজোস। ২০১৭ সালে আমাজনের শেয়ারের দাম হঠাৎ বেড়ে গেলে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য তিনি শীর্ষে উঠে গিয়েছিলেন। তবে পরে আবার দ্বিতীয় স্থানে নেমে আসেন।

১৯৯৪ সালে একটি গ্যারেজে আজকের বিখ্যাত আমাজন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

ব্লুমবার্গের তালিকায় বিশ্বের শীর্ষ ধনী হিসেবে তৃতীয় স্থানটির রদবদল ঘটেছে। জাকারবার্গকে পেছনে ফেলে আবার উঠে এসেছেন ওয়ারেন বাফেট। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৮৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এরপর রয়েছেন জাকারবার্গ। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৮২ দশমিক ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায় পঞ্চম স্থানে আছেন অ্যামানসিও ওর্তেগা। ইনডিটেক্সের প্রতিষ্ঠাতার সম্পদের পরিমাণ ৭৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, ১৬ জুলাই আমাজনের ‘প্রাইম ডে’ কার্যক্রম শুরুর আগে শেয়ারের দাম বেড়ে যায়। এ ছাড়া গত বছর প্রতিষ্ঠানটি ১৭৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে। এতেই সম্পদের হিসাবে শীর্ষে উঠে গেছেন বিশ্বের বৃহত্তম অনলাইন রিটেইল প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার।

বেজোস প্রযুক্তি উদ্যোক্তা হিসেবেও পরিচিত। ২০০০ সালে মহাকাশ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ব্লু অরিজিন প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৩ সালে ওয়াশিংটন পোস্ট কিনে নেন। বেজোস এক্সপেডিশন নামে ব্যক্তিগত ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফান্ড থেকে বিনিয়োগ করেন বেজোস। গুগলে প্রথম দিককার বিনিয়োগকারী হিসেবেও তাঁর পরিচিতি রয়েছে।

বেজোস বিয়ে করেছেন ম্যাকেঞ্জি বেজোসকে। তাঁদের চার সন্তান রয়েছে।

----উৎস অনলাইন

Share on Google Plus

About Md. Mokhlasur Rahman

0 comments:

Post a Comment